ফ্রীলেন্সিং এর জন্য কীভাবে একা একা কাজ শিখা যায়? কোন কাজটি শিখলে ভাল হয়?

ফ্রীলেন্সিং এর কোথায় এবং কিভাবে কাজ শিখা যায়? ফ্রীলেন্সিং জন্য কোন কাজটা শিখলে সব চেয়ে ভাল হবে?

নতুন ফ্রিল্যান্সারদের একটি দুর্দান্ত প্রশ্ন!!! এই উত্তরটি অনেকে অনেক ভাবে দিয়ে থাকে যার কারণে নতুনরা অনেকাংশেই দুশ্চিন্তায় ভোগে যে ফ্রিল্যান্সিংয়ে তার কোন কাজটি নিয়ে এগিয়ে যাওয়া উচিত। প্রথম যে প্রশ্নটি নতুনরা করে থাকে সেটি হচ্ছে কোন কাজটা আমি শিখব? উত্তর হচ্ছে আপনি কোন কাজটি শিখবেন তা কখনোই আরেকজন নির্ধারণ করে দিতে পারে না, কারণ আপনার কোন কাজ শেখা এবং করার ক্যাপাসিটি অন্যের ক্যাপাসিটি থেকে কম অথবা বেশি ও হতে পারে তাই কোন কাজটি আপনার ভালো লাগবে এবং কোন কাজটি আপনি শিখতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন তা সম্পূর্ণই আপনার উপর নির্ভর করে।

 

ফ্রিল্যান্সিং এর কোন কাজে কম কাজ করে সবচেয়ে বেশি আয় করা যায়?

 

সত্যি বলতে এই প্রশ্নটিই শোনার সাথে সাথে আমি দুই থেকে তিনবার গলায় ফাঁসি দেই। কারণ হচ্ছে আপনি যখন কোন একটি কাজ করবেন তখন সেই কাজে আপনাকে অবশ্যই ভালো লাগা থাকতে হবে এবং সেই কাজের মধ্যে আপনার একটি চ্যালেঞ্জ থাকতে হবে। কিন্তু সেই ভাল লাগাটি যদি টাকার উপর নির্ভর করে তাহলে সেই কাজে আপনি ব্যর্থ হবেন এটাই স্বাভাবিক। আর কম কাজ করার ব্যাপারটি, শর্টকাট বলতে শুধু দুই নাম্বার কাজেই টাকা আয় করা যায় কিন্তু আমার জানামতে ফ্রিল্যান্সিংয়ে দুই নাম্বারি করা সবচেয়ে কঠিন কাজ, এখন পর্যন্ত এরকম কোন আইডল আমি এখনো দেখি। যদি কেউ থাকে আমাকে দয়া করে মেনশন করিয়ে দিবেন আমি একটি সেলফি তুলার চেষ্টা করবো এবং ফেসবুক ওয়ালে পোস্ট করে রাখবো কারণ সে একজন প্রতিষ্ঠিত দুই নাম্বারি ফ্রিল্যান্সার। একজন আপনাকে কোন কাজের বিনিময়ে তখনই টাকা দিবে যখন সে ঐ কাজটি করতে পারবে না অথবা তার কাছে ওই পরিমাণ সময় থাকবে না কাজটি সম্পন্ন করার জন্য। তখন সে এমন কাউকে খুজবে যে তার ওই কাজটি সম্পন্ন করতে পারবে তার মানে হচ্ছে তার কাজের যতটুকু কষ্ট এবং সময় যাবে সেই কষ্ট এবং সময় এর বিনিময়ে আপনাকে টাকা দিবে। তাই কখনোই আশা করা উচিত নয় যে একটি খুবই সহজ কাজের জন্য আপনাকে সে ধনীর দুলাল বানিয়ে দিবে, সে আপনাকে ততই দিবে যতোটুকু আপনি করবেন।

 

কোন কাজটি খুব কম সময়ে শেখা যাবে?

আমার জানামতে ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার এ কাজ করার জন্য নিম্নোক্ত কাজগুলো সব থেকে জনপ্রিয়:

১) ওয়েব ডিজাইন

২) ওয়েব ডেভেলপমেন্ট

৩) গ্রাফিক্স ডিজাইন

৪) ডিজিটাল মার্কেটিং

৫) ভিডিও এডিটিং

এখন কথা হচ্ছে কোনটা শিখতে কতটুকু সময় লাগবে!!! আমরা স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটি’তে আমাদের জীবনের 16 থেকে 18 বছর কাটিয়ে দেই কোন কাজ না করে কিন্তু যখনই ফ্রিল্যান্সিংয়ে কেউ কাজ করতে চাই তখনই খুব কম সময়ে মানে এক মাস অথবা দুই মাসের মধ্যে কাজ শিখে আয় করতে চায় আর এই কথাটি বাস্তব হলেও সত্যি যে এক অথবা দুই দুই মাসে কাজ শিখে আপনি মনে হয় না ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন যদি আপনি জিনিয়াস না হয়ে থাকে । যদি আপনি মনে করেন বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে আপনার পক্ষে জব পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না এবং আপনি এক বছরের মতো আরও সময় দিতে পারবেন কাজ শেখার জন্য অথবা এক বছর ধরে কাজ শেখার মন মানসিকতা রাখতে পারবেন তাহলে আমি বলব ফ্রিল্যান্সিং এ কাজ করুন। কাজ শেখার জন্য পুরো এক বছর সময় লাগবে তা আমি বলছি না কিন্তু সবকিছুর বেসিক শিখার জন্য আপনার ন্যূনতম তিন মাস সময় চলে যাবে তারপরে সময় গুলো হচ্ছে আপনার বেসিক কে কাজে লাগিয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করা। হ্যাঁ তিন মাসে যদি আপনি বেসিক বুঝে যান তাহলেই হয়তো বা মার্কেটপ্লেসে ছোট ছোট কাজ করে নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে পারবেন তাতে করে আপনার কিছুটা আয় এর উৎস তৈরি হতে থাকবে কিন্তু যদি আপনার পরিবার থাকে মানে বউ বাচ্চা থাকে তাহলে আমি বলব হুটহাট ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার গড়ার চিন্তা না করাটাই সুবিধাজনক কারন পরিবার চালানোর মতো টাকা আয় করার জন্য আপনাকে একটি বছর সময় দিতেই হবে।

 

 

এখন কথা হচ্ছে যে কিভাবে কোন কাজটি শিখবেন?

 

জ্ঞান অর্জন করা আপনি যে সকল বিষয়ের উপর জেনেছেন তার ওপর দুই থেকে তিন দিন গভীর পর্যালোচনা করুন, বিষয়গুলো কি এবং কোনটা কি কাজে লাগে তার সম্পূর্ণ ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করুন অথবা একটি খাতায় নোট করুন। আমাকে অনেকে অনেক ধরনের প্রশ্ন করে থাকে তখন আমি প্রায়ই এই ব্যাপারটা বুঝি যে সে যে ব্যাপারে আমাকে প্রশ্ন করছে সেটি কি কাজে লাগে তাই তার কোন ধারণা নেই। তাই আপনি যে বিষয়গুলো সম্পর্কে শুনেছেন সেই বিষয়গুলো নিয়ে গুগল অথবা ইউটিউবে সার্চ করুন ইউটিউব এর ভিডিও দেখুন। ধরুন ওয়েব ডিজাইন নিয়ে আপনি জানতে চাচ্ছেন তখন “what is web design” অথবা “web design introduction” এই ধরনের কথা লিখে সার্চ করুন তারপর দেখুন যে ব্যাপার গুলো কি। বেসিক কাজগুলো শিখা প্রথমে আপনাকে ন্যূনতম সাত দিন প্রতিটি বিষয়ের বেসিক কাজগুলো শিখতে হবে এবং প্র্যাকটিস করতে হবে।

তাহলে কিভাবে জানতে পারবেন যে কোন বেসিক কাজগুলো আপনাকে শিখতে হবে?

 

কাজ শিখার জন্য প্রথমে আমি বলব যে কখনোই বই পড়ে শেখার চেষ্টা করবেন না কারণ বই অথবা ই-বুক পরে আপনি ভিজুয়ালাইজেশন করতে পারবেন না কোন কাজের।যদি বই পড়েই সব হত তাহলে স্কুল-কলেজের কোন দরকার ছিল না । প্রথমে ইউটিউব ভিডিও দেখে বেসিক গুলো বুঝার চেষ্টা করুন এবং সেই কাজগুলো শিখতে থাকুন। যেকোনো কাজের নাম লিখে লিখুন বেসিক যেমন “SEO basic tutorials”, “SEO basic tutorials for beginners”. SEO শব্দটির জায়গায় যে কাজটি শিখতে চান ঠিক সেই কাজের শব্দটি ব্যবহার করুন তাহলে দেখবেন ইউটিউবে কিছু খন্ড খন্ড ভিডিও টিউটোরিয়াল আসবে সাথে সিরিজ ভিডিও টিউটোরিয়াল আসবে । আমার নিজস্ব মতামত হচ্ছে যে কোন একটি সিরিজ ভিডিও স্টেপ বাই স্টেপ ফলো করা কারণ একটি সিরিজ ভিডিও টিউটরিয়াল এর মধ্যে গোছানোভাবে একটি কাজ সম্পর্কে ধারনা দেওয়া হয় । যদি সিরিজ টিউটোরিয়াল গুলো দেখতে বিরক্ত লাগে তাহলে আর একটি রাস্তা আছে। “SEO crash course” , crash course শব্দটি ইউটিউবে অনেক বেশি দেখা যায়, এই শব্দটি লিখে যদি আপনি সার্চ করেন তাহলে দেখতে পাবেন যে কোন একটি কাজের উপর এক থেকে দুই ঘন্টার টিউটোরিয়াল তৈরি করা আছে যেখানে একটি ভিডিওর মাধ্যমে ওই কাজের সম্পূর্ণ বিষয় সম্পর্কে প্রাকটিক্যাল ধারণা দেওয়া হয়।এই দুই ভাবে সার্চ করে কাজ শেখার চেষ্টা করুন। ইউটিউব এ শুধু ভিডিও দেখেই বসে থাকলে সবচেয়ে বড় ভুল করবেন ভিডিও দেখে সেই কাজগুলো অবশ্যই এর সাথে সাথে প্র্যাকটিস করার চেষ্টা করুন তাহলে মূল বিষয় সম্পর্কে আপনার একটি ভালো এবং স্পষ্ট ধারণা হবে। ভিডিও দেখে যদি আপনি কোন কাজ নির্ধারণ করতে চান তাহলে আমি বলব এভাবে কোন কাজ নির্ধারণ করা পূর্ণাঙ্গরূপে ভুল। কাজটি সম্পূর্ণরূপে বুঝার চেষ্টা করুন এবং প্র্যাকটিস করুন তাহলেই আপনি ভালভাবে অনুধাবন করতে পারবেন। বেসিক শিখার পর ধরুন আপনি প্রতিটি বিষয়ের উপর বেসিক শিখে ফেলেছেন বা ধারণা আছে এখন সময় হচ্ছে কোন কাজটি নির্ধারণ করবেন আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার জন্য তা চিন্তা ভাবনা করুন এবং যে কোন একটি কাজ কে নির্ধারণ করতে হবে।যদি আপনি সুপার হিউম্যান না হয়ে থাকেন তাহলে যেকোনো একটি কাজ কে নিয়ে এগিয়ে যাওয়া আপনার জন্য উত্তম হবে।

 

এখন কথা হচ্ছে যে কিভাবে ওই কাজের উপর অ্যাডভান্স কাজগুলো শিখতে পারবেন?

 

ইউটিউব এ ভিডিও থাকার কারণে একটি কাজের উপর যখন এডভান্স কিছু শিখতে হয় তখন সেই অ্যাডভান্স কাজ গুলো ভালোভাবে গোছানো থাকেনা অথবা পাওয়া যায় না । তখন বুঝতে অসুবিধে হয় যে কোন কাজটি কখন কিভাবে শিখতে হবে তাই এর রাস্তা হচ্ছে আপনাকে প্রিমিয়াম ভিডিও টিউটোরিয়াল অথবা প্রিমিয়াম কোর্স কিনতে হবে।যেহেতু আপনি কোন টাকা আয় করেন না সেহেতু অবশ্যই কোন ইনভেস্টমেন্ট এর দরকার আমি মনে করি না। তাহলে কিভাবে ফ্রিতে ওই অ্যাডভান্স কাজগুলো শিখবেন? ইউটিউব এর মাধ্যমে আপনি ওই অ্যাডভান্স কাজগুলো খুব সহজেই শিখে ফেলতে পারবেন কিন্তু এর জন্য আপনাকে জানতে হবে যে আপনি কোন কাজটি শিখবেন এবং সেই কাজের উপর স্পেসিফিক্যালি সার্চ করতে হবে যাতে ইউটিউব বুঝতে পারে যে আপনি এই ভিডিওটি দেখতে চাচ্ছেন। Udemy.com হচ্ছে একটি প্রিমিয়াম অনলাইন কোর্স ওয়েব সাইট যেখানে শুধু বিভিন্ন কাজের উপর ভিডিও কোর্স পাওয়া যায়। ভিডিও টিউটোরিয়াল কোর্স গুলো একটি লক্ষ্য নিয়ে সম্পূর্ণরূপে তৈরি করা হয়।

 

 

যেহেতু এটি একটি প্রিমিয়াম ওয়েবসাইট তাহলে কিভাবে এই ওয়েবসাইট থেকে শিখতে পারেন?

 

আপনি ওয়েবসাইটের মধ্যে যে কাজটি শিখতে চান সেই কাজের নাম লিখে সার্চ করুন তাহলে দেখবেন অনেকগুলো কোর্স আপনার সামনে এসেছে যে কোচ টিতে ভালো এবং বেশি রিভিউ আছে সেই কুষ্ঠি তে ক্লিক করুন। দেখতে পাবেন ওই কোর্সটির বিভিন্ন ডিটেইলস দেওয়া আছে। এবং একটু নিচে কাজের পূর্ণাঙ্গ মডিউল দেওয়া আছে। যেহেতু প্রিমিয়াম কোর্স তাই অবশ্যই এডভান্স লেভেল সম্পর্কে ধারণা দেওয়া আছে এবং কোর্সের মান যদি ভাল থাকে তাহলে ভালো রিভিউ দেওয়া থাকে। কোর্সের মডিউল গুলো লিস্ট আকারে একটি ডকুমেন্টে কপি করে রাখুন। এই রকম কয়েকটি কোর্স নিয়ে রিসার্চ করুন এবং কোষগুলো সামঞ্জস্য রেখে একটি মডিউল তৈরি করুন। ব্যাস আপনি জেনে যাবেন যে কিভাবে এবং কোন কোন এডভান্স বিষয়গুলো আপনাকে শিখতে হবে। মডিউলের যা লিখা আছে ঠিক তাই লিখে ইউটিউবে অথবা গুগোল এ সার্চ করবেন এবং প্রতিটি বিষয় সম্পর্কে বিভিন্ন আর্টিকেল এবং ভিডিও দেখে শিখার চেষ্টা করুন। এভাবে আপনি যে মডিউলটি তৈরি করেছেন সেই মডিউলটি পূর্ণাঙ্গ রিসোর্স নিয়ে শেখা শুরু করে দিন এবং অবশ্যই প্রতিটি বিষয় সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ ধারণা রাখুন। এতে করে আপনাকে বারবার জিজ্ঞেস করতে হবে না যে কোন বিষয়গুলো আপনার শেখা প্রয়োজন এবং কোনটি শিখতে পারলে আপনি কাজ করতে পারবেন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে।

No Comments

Post A Comment

name:

phone:

email:

skype:

address:

Interested course: