ফ্রীলেন্সার হয়ে তৈরি করুন নিজের আইটি ফার্ম – পার্ট ২

ফ্রীলেন্সার হয়ে তৈরি করুন নিজের আইটি ফার্ম – পার্ট ২
Now Let’s start the important level of team work for agency
5. Work with one partner for team work
সঠিক পার্টনার আর বিয়ের জন্য মেয়ে খোজা একই কথা😛 । আমি একটু আগেই বলেছি যে কমিউনিটি তে জয়েন থাকতে । তাহলে অনেক মানুষ এর সাথে রিলেশন বিল্ডআপ হবে। সেখান আপনাকে একজন চুজ করতে হবে বিজনেস এর জন্য অথবা কোনো ফ্রেন্ড এর সাথেই শুরু করতে পারেন একটি বেসিক পার্টনারশিপ। অবশ্যই নিজেকে যাচাই করে নিতে হবে যে আপনি যাকে নিয়ে কাজ করছেন তার সাথে কতদিন ফিউচার কাজ করা যায়।

২ মাস পার্টনারশিপে কাজ করে দেখুন। তারপর প্রবলেম বের করুন এবং তা শুধরানোর চেষ্টা করুন। কাজ করতে অনেক ভুল হতেই পারে তা এডজাস্ট করে নিন। যদি না হয় তাহলে অন্য কারো সাথে চেষ্টা করুন। মনে রাখবেন চেষ্টা করলে কেস্ট মিলে। চেষ্টা করতে থাকুন দেখবেন আপনার ইচ্ছা মত পেয়ে গিয়েছেন।

একটা কথা মনে রাখবেন আপনার দক্ষতা মিনিমাম ৩০% এর বেবধান থাকতে পারে। বেশী বেবধাণ থাকলে কাজ করতে অসুবিধা হবে।
একজন কাজ আউটসোর্স করতে পারলে আরেকজন কাজ করতে হবে। যদি দুইজনই কাজ আউটসোর্স করতে জানেন তাহলে কিছুটা প্রব্লেম হতে পারে।

যখন কাজ করবেন তখন একজন শুধু কাজ আউটসোর্স করে নেওয়ার চেষ্টা করবেন এবং রিসার্চ করবেন। আর আরেকজন শুধু কাজ করবেন। তাহলে অনেক কাজ পেতে এবং কাজ করতে সুবিধা হবে। একসাথে দুটি করার চেষ্টা টা ভুল হবে।

ধরুন কাজের পরিমাণ বেড়ে গেলো তখন অন্য আরেকজন ফ্রিল্যান্সার হায়ার করার চেষ্টা করুন এবং তাকে দিয়ে কাজ টা করিয়ে নিন নিজেদের পকেটে কিছু রেখে। তাতে করে এক্সট্রা একটি প্রফিট আসবে। অবশ্যই যে কাজ করে সেই কাজ টা অন্যকে দিয়ে করাবে এবং যে কাজ আউটসোর্স করে সে কোনো কাজে হাত দিবেনা। তাহলে দেখবেন কাজ অনেক তাড়াতাড়ি শেষ হয়ে গিয়েছে।

আবারও বলছি যে কাজ আউটসোর্স করবে সে কোনো কাজ করতে পারবেনা তাহলে আপনাদের আয় বেশী ভালো হবেনা সব সময় এই দিক টা খেয়াল রাখবেন।

পার্টনারশিপের নিয়ম কখনো ব্রেক করবেন না। যে রুলসে কাজ করছেন ঠিক সেই রুলেসে কাজ করুন। মানে যে রুলসে আপনারা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।

6. Earning should be minimum $700 to $1500 per month

$700 থেকে শুরু করে $1500 পর্যন্ত আয় করার চেষ্টা করবেন। টিম মেম্বার বৃদ্ধি পেলে কাজের পরিমাণ এবং প্রাইস বাড়িয়ে দিন। আমি যখন অফিস শুরু করি তখন আমার আয় ছিল প্রায় প্রতি মাসে ১২০০ ডলার এর উপরে যা দিয়ে আমি ৪ জন টিম মেম্বার নিয়ে কাজ করতাম। সবসময় কম কাজে প্রাইস ভ্যালু বেশী নেওয়ার চেষ্টা করবেন ভালো সার্ভিস দিয়ে।

মার্কেটপ্লেস এর কিছু ভ্রান্ত ধারণা:

১) কম প্রাইস কাজ করে বায়ার পটানুর চেষ্টা করা
২) একটি কাজের উপর সার্ভিস দেওয়া
৩) যেকোনো প্রাইস এর কাজ পেলেই সেই কাজ লুফে নেওয়া
৪) ক্লায়েন্টকে ডেডলাইন দিয়ে ভুগোচুগী বুঝানো
৫) টার্গেট ছাড়া কাজ করা
৬) কাজ করার পর কাজের দক্ষতা না বাড়িয়ে কাজ করা। সবসময় কিছু না কিছু আপডেট হয় তাই সবসময় কী কাজ করলে স্কিল ডেভেলপ হবে তার দিকে নজর রাখুন।

7. Payment methods for Get and Spend payment

এখন কথা হচ্ছে পেমেন্ট মেথড নিয়ে : কীভাবে টাকা উইথড্র করবেন?

টাকা উইথড্র করার জন্য পপুলার মেথড গুলো হচ্ছে পেপাল, পেওনিয়ার, স্ক্রিল অথবা পেয়জা।

তবে সিকিউর পেমেন্ট মেথড হচ্ছে পেওনিয়ার এবং স্ক্রিল বাংলাদেশ এর জন্য। পেপাল বাংলাদেশ সাপোর্ট করেনা তাই আমি পেপাল ব্যাবহার করতে বলবোনা। যদিও বা অনেকেই ব্যাবহার করে ভালো ভালো ধরা খায়। ইতিহাস নাই বললাম।

তবে পেপাল এর জন্য আপনার 2Checkout ব্যাবহার করতে পারেন। নিজস্ব ওয়েবসাইট এর সার্ভিস এর জন্য। এর দ্বারা আপনি পেপাল এর সার্ভিস বা কমার্শিয়াল সুবিধা পেয়ে যাবেন।

তাছাড়া জুম ব্যাবহার করে আপনার ক্লায়েন্ট এর কাস থেকে পেপাল সুবিধা নিতে পারেন তবে ক্লায়েন্টকে বুঝিয়ে বলতে হবে।

পেমেন্ট দেওয়ার জন্য ব্যাবহার করতে পারেন Western Union অথবা ইস্টার্ন ব্যাংক এর একুয়া প্রিপেইড কার্ড। যা দ্বারা আপনি আপনার অনলাইন শপ অথবা যেকোনো পেমেন্ট দিতে পারবেন মাস্টার কার্ড থেকে মাস্টার কার্ডে।

8. Teach your friends,brother, cousin or personal trustful person

ঠিক এইভাবে কাজ করতে করতে আপনি আপনার আরেকজন আত্মীয়স্বজন অথবা ফ্রেন্ডকে কাজ শিখানোর চেষ্টা করুন। এইভাবে এক একজন করে টিম মেম্বার বাড়ান। টিমের মেম্বারদের একটি স্কিলের উপর বিভন্ন প্রকার কাজের ধারনা দিন। এক এক জনকে এক এক টাইপের স্পেশালিষ্ট করে তুলুন। আমি আমার টিম করার জন্য প্রায় ৫০ থেকে ৭০ জন লোককে শিখিয়েছি। কেউ প্রথম দিনের মাথায় গায়েব হয়ে গিয়েছে আবার কেউ ৭ দিনের মাথায় পুরো দুনিয়া থেকে উধাও। তাই কখন চিন্তিত হবেনা না। চেষ্টা করে যাবেন শিখিয়ে টিম হিসেবে তৈরি করার। তাতে করে আপনার কাজের কোনও প্রকার সমস্যা হবেনা। সবাইকে অবশ্যই কাজের বেসিক জানা থাকতে হবে। তারপর তারকে যেকোনো একটি কাজের দক্ষ করে তুলবেন। মনে রাখবেন ফার্ম শুরু করার সময় আপনার অবশ্যই কিছু টিম মেম্বার লাগবে যারা আপনার আয় না হলেও আপনার সাথে থাকবে। কারন অফিসিয়াল যেকোনো কাজেই নুন্নতম ৬ মাস আয়ের থেকে লস হয় তাই তাদের কে দিয়ে কাজ করান এবং বেশী বেশী কাজ আউটসোর্স করার ট্রাই করুন। নিজেদের কাজ করে নিজেদের স্কিল করে তুলুন।

10. Rent a office for better Quality and mindset

এইবার হচ্ছে আপনাদের যুদ্ধের ময়দানে নামার সময়। উপরের সব কিছু ঠিক থাকলে একটি অফিস রেন্ট করার চেষ্টা করুন। অফিসের বিভিন্ন জিনিষ পত্র কেনার চেষ্টা করুন। অফিস হচ্ছে আপনার টিম ওয়ার্ক এর প্রধান অস্ত্র। যদি অফিস না থাকে তাহলে আপনার টিম বেশী দিন ধরে রাখতে পারবেন বলে মনে হয় না। অফিসে টিম ওয়ার্ক করলে কাজ ফাঁকি দেওয়া এবং প্রজেক্ট এর বিভিন্ন সমাধান থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। তাছাড়া টিম এর সবাই মিলে কাজ করলে অনেক টুকু সময় কাজ করতে ভাল লাগে যা ঘরের ভিতর একা একা করতে গেলে অসহ্য লাগে।

অফিসে মিনিমাম ২ টি রুম দেখে রেন্ট করবেন। একটি তে কাজ করানো হবে আরেকটিতে টিম ম্যানেজমেন্ট অথবা টপ লেভেল এর জন্য বরাদ্দ থাকবে। তাতে করে একটি অফিসিয়াল ফ্লেবার কাজ করবে যেটা অফিসের ক্ষেত্রে অনেক জরুরী। অনেকেই ভাবেন যে একটি রুমের মধ্যেই সব কাজ করে ফেলবেন। টা অবশ্যই করতে পারবেন কিন্তু আপনার সিকিউরিটি বলতে কিছুই থাকবেনা। প্রতিটি কাজের একটা সিকিউরিটি থাকা জরুরি। ধরুন আপনি একি রুমে কাজ করছেন আপনার টিম এর সাথে এতে করে আপনার নিজের ই ক্ষতি কারন যারা কাজ করে তাঁরা সব কিছুই দেখতে পারবে এবং অনেক ধরনের সমস্যা তৈরি হবে।

রেন্ট আপনাদের বাজেট এর মধ্যে রাখবেন এবং যত কমে পারা যায় তত ভাল ভাল প্রথম অবস্থায়।

মনে রাখবেন রেন্ট দিলেই কাজ শেষ নয়। আপনাকে ইন্টারনেট বিল দিতে হবে, বিদ্যুৎ বিল দিতে হবে, আরো অন্যান্য খরচ আছে। যেটা আপনি নিজেও বুঝবেন না। যেমনটা আমি মাঝে মধ্যেই টের পাই না আর চিন্তা করি আমার টেকা গেলো কই?

যতজন টিম মেম্বার থাকবে ততজন এর জন্য অফিসিয়াল পিসি অথবা ল্যাপটপ রাখবেন। আমার অফিসের সবাই ল্যাপটপ ব্যাবহার করে তাই আমার দরকার পড়ে নাই। যদি সবার ল্যাপটপ থাকে তাহলে সব থেকে ভালো হয়। অফিস নেওয়ার পর যদি বাহিরের কাওকে হায়ার করেন তাহলে তখন একটি পিসি রাখার চেষ্টা করুন।

টেবিল চেয়ার এবং অন্যান্য সামগ্রিক বাজেট তৈরি করুন। এবং তা ক্রয় করার চেষ্টা করুন। একসাথে করতে না পারলে প্রতিমাসে করুন।

অফিস এর জন্য একটি নিয়ম এবং নীতিমালা তৈরি করুন এবং তা মেনে চলুন।

প্রথমে ১০ ঘণ্টা করার চেষ্টা করবেন এবং তারপর তা ৮ ঘণ্টায় নামানোর চেষ্টা করুন। কারণ এর থেকে বেশী কাজ করতে চাইলে আপনি ক্লান্ত হতে ডিপ্রেসড হতে পারেন। আমি বেশী করার কারণে একটু অস্বস্থি ফিল করতাম তাই পরে কাজ এর সময় ভাগ করে নেওয়ার কারণে অনেকটুকু রিলিফ লাগে এবং বেশী বেশী কাজ করতে ভালো লাগে।

No Comments

Post A Comment

name:

phone:

email:

skype:

address:

Interested course: